হাসপাতালের অবহেলায় মা ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

হাসপাতালের অবহেলায় মা ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

মে ২১, ২০১৮ : ৪:২৩ অপরাহ্ণ || দৈনিক বাস্তবতা

print
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় বেসরকারি এক প্রাইভেট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, প্রসব বেদনা নিয়ে এক মা শনিবার রাত ৩টার দিকে ওই হাসপাতালে ভর্তি হলে অধিক রক্তক্ষরণে কুষ্টিয়ার হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু ঘটে। এ বিষয়ে প্রসূতির পরিবারের পক্ষ থেকে মৃত্যুর জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে দায়ী করলেও দায় এড়িয়েছেন কর্তৃপক্ষ। মৃত প্রসূতির পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয় শনিবার দিবাগত রাত ৩ টার দিকে প্রসব বেদনায় কাতরানো পান্টি গ্রামের বাবু মন্ডলের স্ত্রী সালমাকে ভর্তি করা হয় পান্টি প্রাইভেট হাসপাতালে। সন্তান প্রসব বাবদ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে ১০হাজার টাকা চুক্তি হয়। কোনো প্রকার আয়োজন ছাড়াই কর্তব্যরত চিকিৎসক উত্তম অপারেশন কক্ষে নিয়ে অপারেশন করতে থাকেন। আর অপারেশন টেবিলেই মারা যায় নবজাতক। প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকে প্রসূতি সালমা খাতুনের। এজন্য চিকিৎসক দ্রুত রক্ত যোগাড় করতে বলেন রোগীর স্বজনদের। তাৎক্ষনিক এ-পজিটিভ রক্তের প্রয়োজন। কোথায় পাবেন রক্ত? দ্রুত একব্যাগ রক্ত জোগাড় করা হয়।

কিন্তু রক্ত আরো প্রয়োজন। তাই পুনরায় রক্ত জোগাড় করতে পাঠানো হয়। প্রসূতি ওই মায়ের অবস্থার চরম অবনতি ঘটলে পাঠানো হয় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের উদ্দেশ্যে। কিন্তু অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান সালমা খাতুন। এ বিষয়ে মৃত সালমা খাতুনের চাচি চায়না খাতুন বলেন, পান্টি হাসপাতালের মালিক লিয়াকত ও চিকিৎসক উত্তম কুমার কোনো প্রকার প্রস্ততি ছাড়াই অপারেশন থিয়েটারে ঢোকায় সালমাকে। রক্তের কোনো ব্যবস্থাও করতে বলেনি আগে থেকে। তারা নরমাল ডেলিভারি করবেন বলে জানায়। কিন্তু নরমাল ডেলিভারি হলেও বাঁচানো যায়নি নবজাতককে। আর প্রচুর রক্তক্ষরণের কারনে মারা যায় সালমা খাতুন। এলাকাবাসীর অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসক নার্স ছাড়াই চলছে পান্টি প্রাইভেট হাসপাতালের কার্যক্রম। ইতোপূর্বে বেশ কয়েকজন চিকিৎসা নিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন।

এসব কারনে ওই হাসপাতাল সীলগালাও করে দেয় কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকে হাসপাতালের কার্যক্রম। পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে পুনরায় কার্যক্রম শুরু করে হাপাতালটি। এ বিষয়ে চিকিৎসক উত্তম জানান অতিরিক্ত ব্লিডিং-এর কারণে সালমার মৃত্যু হয়েছে। এতে তাদের কোন ত্রুুটি ছিলনা। হাসপাতাল মালিক লিয়াকত আলীও কথা বলেন ওই চিকিৎসকের সুরেই। এ বিষয়ে কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন রওশন আরা বেগম জানান বিষয়টি শুনেছি। সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on Twitter0Share on LinkedIn0Share on Reddit0



Daily Bastobota | bangla news
সম্পাদক : মোঃ জান্নাতুল বাকি
প্রকাশক : আব্দুল মান্নান তালুকদার
মোক্তার বার ভবন (২য় তলা), নিউ মার্কেট রোড, বাগেরহাট।
টেলিফোন : ০৪৬৮-৬৪৭১১
ই-মেইল: dbastobota@gmail.com