ডুমুরিয়ার সেই লতিফ হুজুরের আস্তানা আবারও জমজমাট

ডুমুরিয়ার সেই লতিফ হুজুরের আস্তানা আবারও জমজমাট

আগস্ট ৯, ২০১৮ : ৮:৪০ অপরাহ্ণ || দৈনিক বাস্তবতা

print
ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগরের সেই লতিফ হুজুর আবারও স্ব মহিমায় আভির্ভূত হয়েছেন। হৃদয় চমকানো কথা বলে বশ করেছেন গ্রামের সরল সোজা মহিলাদের। বাস্তবে কোন রোগী সুস্থ না হলেও হুজুগে মাতা মহিলারা লাইন দিচ্ছেন তার আস্তানায়। এবার তিনি পানিতে ফুঁক দিচ্ছেন আটঘাট বেঁধে। এজেন্টের মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকায় গিয়েও তিনি রোগী দেখছেন। কয়েকমাস আগে পত্রিকায় তার তেল-পানি পড়ার খবর প্রকাশিত হলে তিনি কিছুদিনের জন্যে তার কারামতি বন্ধ রাখেন। পরে এলাকার কতিপয় প্রভাভশালী ব্যক্তিকে ম্যানেজ করে শহরের হাইস্কুল রোডে আবারও রোগীদের তেল-পানি পড়া ও ঝাড়ফুক দিতে শুরু করেছেন তিনি। তার তেল-পানি পড়াতে নাকি ভাল হয় দুনিয়ার সব রোগ।

সর্দি জ্বর থেকে শুরু করে টাইফয়েড, বহুমুত্র, বাতব্যাথা , চর্মরোগ, এলার্জী, সাপেকাটা, কুকুরে কামড়ানো, বিড়ালে কামড়ানো, জ্বীনে ধরা, স্বামী-স্ত্রী বনিবনা না হওয়া, সন্তান না হওয়া, যেকোন ধরনের ব্যাথা, গ্যাসটিক, পিত্তথলির পাথর, জন্ডিস, এ্যাজমা, অর্শ্ব, ভারণ দেয়া,বাড়ি বন্ধ করা সহ যে কোন বিষয়ের বিশেষজ্ঞ তিনি। বছর খানেক আগে আস্তানা গাড়েন চুকনগর শহরের হাইস্কুল রোডের একটি ঘরের মধ্যে। প্রতিদিন শত শত রোগী আসে লতিফ হুজুরের চিকিৎসা নেয়ার জন্যে। সকাল থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত রোগী দেখেন।

কয়েকমাস আগে তার আস্তানায় গিয়ে দেখা যায় প্রায় ৫০ জনের মত রোগী। যার মধ্যে ৪০ জনের মত মহিলা। সকলের হাতে পানি ও তেলের বোতল।একেক জনকে একেক ভাবে চিকিৎসা করাচ্ছেন তিনি। আব্দুল লতিফ ডুমুরিয়া উপজেলার রোস্তমপুর গ্রামের মোক্তার মোড়লের পুত্র। বয়স ৩৫ বছরের মত। তার আস্তানায় মোট ৪ টি সাইন বোর্ড ছিল। যার একটিতে লেখা তার শিক্ষাগত যোগ্যতা,একটিতে রোগের চিকিৎসা খরচ যথা-সাপে কাটা ফি ৫০০ টাকা,কুকুরে কামড়ানো ফি ২৫০ টাকা, বিড়ালে কামড়ানো ফি ১৫০ টাকা, অর্শ¦ রোগী ২০০ টাকা, জ্বিনে ধরা ফি ৩০০ টাকা, প্রয়োজনে ভারন ফি ১০০ টাকা,বাড়ি বন্ধ করা ফি ৩০০ টাকা। একটি সাইন বোর্ডে লেখা প্রথম সাক্ষাত ৫০ টাকা, দ্বিতীয় সাক্ষাত ৩০ টাকা। আরেকটি সাইন বোর্ডে লেখা আছে আল্লাহর রহমত চাই,আপনাদের সহযোগীতা চাই, ২০১৯ সালে হজ্ব করতে চাই। তবে এবার আর তার আস্তানায় কোন সাইনবোর্ড নেই।

পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর থেকে সাইনবোর্ডগুলো সরিয়ে ফেলেছেন তিনি। এসময় তার কাছে চিকিৎসার কোন সনদ আছে জনতে চাইলে তিনি বলেন কোন সনদ নেই আল্লাহর কালাম পড়ে ফু দিলে সব রোগ ভাল হয়ে যায়। আস্তানায় উপস্থিত কয়েকজন রোগীর সাথে কথা হয় সাংবাদিকদের। এদের মধ্যে রাবেয়া বেগম (৬০) এসেছেন এলার্জী রোগ নিয়ে,রওশানারা (৪০) এসেছেন পেটে ব্যাথা রোগের চিকিৎসা নিতে।মাজায় ব্যথা সারাতে এসেছেন হাফিজা বেগম(৪০)।এমনিভাবে বহু রোগী তাদের রোগ নিরাময়ের জন্য হুজুরের দরবারে এসেছেন। কিন্তু তাদের সবাই প্রথম বারের মত এসেছেন। আশপাশের অনেকেই হুজুরের পানি পড়াতে সুস্থ্য হয়ে গেছেন এই গুজব শুনে এসেছেন তারা। পুরাতন রোগীদের মধ্যে কথা হয় একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সাথে,তিনি কয়েকমাস আগে মেরুদন্ডের হাড়ের ব্যাথা নিয়ে হুজুরের কাছে গিয়েছিলেন বলে জানান, তবে মাসাধিককাল যাবৎ তেল-পানি ব্যবহার করে সুস্থ্য হতে না পেরে তিনি বর্তমানে ভারতের ডাক্তার দেখাচ্ছেন বলে জানান। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চুকনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জনৈক শিক্ষক বলেন স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে অনেক রোগীর ভিড় দেখে পায়ের ব্যাথার জন্যে আমিও গিয়েছিলাম, কিন্তু ১৫দিন তেল-পানি ব্যবহারে কোন ফল না পেয়ে অবশেষে অন্য ডাক্তার দেখাচ্ছি।

এরকম আরও অনেকের সাথেই এ প্রতিবেদকের কথা হয়। কিন্তু লতিফের বিরুদ্ধে কথা বললে তার সাঙ্গ-পাঙ্গ দ্বারা হেনস্তা হওয়ার ভয়ে কেউ মুখ খূলতে সাহস পায়না। এব্যাপারে জানতে চাইলে ডুমুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ এ এস এম মারুফ হাসান বলেন, চিকিৎসা বিজ্ঞানে তেল-পানিপড়া, ঝাড়ফুক, গলায় মালা পরানো এসব কোন কিছুতেই রোগ ভাল হওয়ার কোন তথ্য লেখা নেই। তবে, এসব কুচিৎিসায় অসুস্থ্য লোক ভাল না হলেও সুস্থ্য লোক অসুস্থ্য হয়ে যায়। এ বিষয়গুলো যদি এই জামানায় এসেও সাধারন মানুষ না বোঝে তাহলে আর কিই বা করার আছে। ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. শাহনাজ বেগম বলেন, আমি কয়েকমাস এখানে যোগদান করেছি। এবিষয়ে আমি কিছু জানতামনা। তবে লাইসেন্স ছাড়া তিনি কিভাবে চিকিৎসা করেন? আর তেল-পানিপড়া দিয়ে কখনও রোগ ভাল হয়না। এব্যাপারে খোজ খবর নিয়ে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া
হবে বলে জানান তিনি।

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on Twitter0Share on LinkedIn0Share on Reddit0



Daily Bastobota | bangla news
সম্পাদক : মোঃ জান্নাতুল বাকি
প্রকাশক : আব্দুল মান্নান তালুকদার
মোক্তার বার ভবন (২য় তলা), নিউ মার্কেট রোড, বাগেরহাট।
টেলিফোন : ০৪৬৮-৬৪৭১১
ই-মেইল: dbastobota@gmail.com